NRC কি? কেন আসামে NRC লাঘু হয়েছে? What is NRC? Why NRC Implemented in Assam?

what is nrc in begali

NRC শব্দটি ভারতে মহামারী আকার ধারণ করেছে, বিশেষ করে পূর্ব ভারতের রাজ্য বাংলাতে। এই শব্দটি শুনলে যেমন কিছু মানুষ ভয়ে জড়োসড়ো হয়ে যাচ্ছে, তেমনি কিছু মানুষ খুব আনন্দিত হচ্ছে।

আবারো, এই শব্দটির দ্বারা রাজনৈতিক দলগুলি কিছু উত্তেজনা মূলক বক্তৃতার মাধ্যমে দলের ভোট ব্যাঙ্ক বাড়াতে কঠোর প্রচেষ্টা করছে। কেউ বলছে মুসলিমদের বাংলাদেশ পাঠিয়ে দেব, আবার কেউ বলছে আমরা বাঙালিরা  এক হয়ে লড়বো NRC-এর বিরুদ্ধে।

কিন্তু কেন ? NRC (National Register of Citizens) কী ? কেন NRC ভারতে আনা হয়েছিল ?

NRC কী ? (What is NRC?)

National Register of Citizens (NRC) একটি ভারত সরকার দ্বারা পরিচালিত নিবন্ধন, যার মাধ্যমে ভারতীয় নাগরিকদের সমস্ত তথ্য সংগ্রহ করে  তালিকা তৈরী করা। এই নিবন্ধটির প্রস্তুতি শুরু হয়েছিল ১৯৫১ সালের আদমশুমারি থেকে এবং এটি এখন পর্যন্ত আপডেট চলছে। এবং NRC বিশেষ করে আসাম রাজ্যের জন্যে লঘু করা হয়েছিল। 

assam nrc

কেন আসামে NRC আনা হয়েছিল ? (Why NRC Implemented in Assam ?)

১৮২৪ সালে ইংরেজরা যানডোবা চুক্তির মাধ্যমে আসামে নিজ ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়।  ক্ষমতায় আসার পর তারা আসামে চা চাষের জন্যে বাংলা থেকে মানুষকে আসামে আসার জন্যে উৎসাহিত করে। এর ফলে অনেক বাঙালি, বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গ আর এখনকার বাংলাদেশের মানুষ আসামের দিকে আকর্ষিত হয়। এভাবে অনেক মানুষের প্রবেশ হয় আসামের মধ্যে।

১৯৪৭ সালের পর, ভারত দুই ভাগে বিভক্ত হলে হিন্দু অধ্যুষিত দেশ ভারতে অনেক হিন্দু পূর্ব-পাকিস্তান থেকে আসামের দিকে রওনা দেয়। এইভাবে বহু মানুষের অনুপ্রবেশ ঘটে। ফলে আসামের স্থানীয় অধিবাসীর মনে সংখ্যালঘু হওয়ার একটা ভয় ঢুকতে থাকে এবং এর বিরুদ্ধে আওয়াজ উঠাতে শুরু করে। যার ফল স্বরূপ ১৯৫১ সালের আদমশুমারি থেকে NRC প্রস্তুতি শুরু হয়। কিন্তু সেই সময় এতবড়ো একটা প্রক্রিয়াকে সফল রূপ দেওয়া অসম্ভব ছিল এবং নানান কারণ বসত এই প্রক্রিয়াটি স্থগিত হয়ে যাই। 

এর পরেও ১৯৭১ সাল অবদি  ভারত পূর্ব-পাকিস্তান বর্ডার শক্ত না থাকায়, এবং পশ্চিম-পাকিস্তান ও পূর্ব-পাকিস্তান এর কোনো সমস্যা হলেই মানুষ ভারতের দিকে চলে আস্তে পছন্দ করত। এমনকি বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরেও অনেক সংখ্যক মানুষ ভারতে আস্তে থাকে। 

assam nrc

বাংলাদেশ থেকে আসামে আসার আর একটা অন্যতম প্রধান কারণ ছিল, বাংলাদেশ বর্ডার এলাকা পশ্চিমবঙ্গ প্রথম থেকেই জনবহুল ছিল, এখানে শিল্প খারখানা প্রথম থেকেই ছিল। তাই এখানে মানুষ এসে জায়গার ব্যবস্থা করতে পারতো না এবং কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা কম ছিল। তাই মানুষ কম জনবহুল আসামে গিয়ে স্বাচ্ছন্দে বাস করতে পারত। এইভাবে আসামে বাংলাদেশি হিন্দু-মুসলিম সব ধর্মের মানুষই এখানে এসে বসবাস শুরু করতো। 

এরপর ১৯৭৯ সালে অল আসাম স্টুডেন্ট ইউনিয়ন (AASU ) নাম একটা সংগঠন তৈরী হয় যেটি আসাম আন্দোলন ( Assam Movement ) নাম পরিচিত। এদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল বহিরাগত অনুপ্রবেশকারীদের ভোটার লিস্ট থেকে নাম বাদ দেওয়া, তাদের ফেরত পাঠা এবং বহিরাগতদের জন্যে ডিটেনশন ক্যাম্প এর ব্যবস্থা করা। 

এর ফলে আসামে অস্থিরতার পরিস্থিতি শুরু হয় এবং অনুপ্রবেশকারীদের উপর অত্যাচার শুরু হয়।  

এই পরিস্থিতি থেকে আসামকে শান্ত করার জন্যে ১৯৮৫ সালে প্রধান মন্ত্রী রাজীব গান্ধী AASU এর সাথে সন্ধি করেন যেটি Assam Accord নামে পরিচিত। এই সন্ধি অনুযায়ী ১ জানুয়ারি ১৯৬৬ সালের আগে যারা ভারতে এসেছিলো তারা ভারতের নাগরিক হিসাবে গণ্য হবে। এবং ১ জানুয়ারী ১৯৬৬ সাল থেকে ২৪ মার্চ ১৯৭১ সালের মধ্যে যারা এসেছে তাদের ভারতীয় বলে গণ্য করা হবে কিন্তু তাদের ভোটের অধিকার থাকবে না। 

এর পরে এই প্রক্রিয়ার কয়েক দশক কোনো কাজ হয়নি। ২০১০ সালে আসামের দুটি জেলায় এটি শুরু করেছিল কিন্তু প্রচুর মানুষের প্রতিবাদের কারণে এটিকে বন্ধ করতে বাধ্য হয়। এরপর মে ২০১৩ সালে সুপ্রিম কোর্ট আদেশ জারি করে এটাকে অক্টোবর ২০১৩ এর মধ্যে সম্পূর্ণ করতে বাধ্য করে। কিন্তু রাজ্য সরকার এই সময়ে সম্পূর্ণ করতে না পারায় সুপ্রিম কোর্ট নিজ হাতে এই দায়িত্ব নিয়ে নেই এবং সেটা এখন অবদি চলছে। 

What is NRC?


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ